লেবুর চর

লেবুর চর পটুয়াখালী

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত লেবুর চর। ১০০০ একর আয়তনের লেবুর চর স্থানীয়ভাবে নেম্বুর চর নামেও পরিচিত। এই চরে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ আছে যেমনঃ কেওড়া, গেওয়া, গোরান, কড়ই, গোলপাতা ইত্যাদি। কুয়াকাটার পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত হওয়ায় এই চরে কুয়াকাটা থেকে সহজেই যাওয়া যায়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যবেষ্টিত এই চর পর্যটকদের জন্য একটি আকর্ষণীয় স্থান। স্থানীয় লোকজনদের মতে এটি একসময় সুন্দরবনের একটি অংশ ছিল কিন্তু বর্তমানে এটি সুন্দরবন থেকে বিচ্ছিন্ন। অবশ্য চরের শেষমাথায় দাড়ালে দূরে সুন্দরবনের সবুজের সারি দেখা যায়।এছাড়া শেষ বিকেলবেলা বিস্তীর্ণ চরে দাঁড়িয়ে দূরে সমুদ্রের বুকে সূর্যাস্ত,একটা অপার্থিব সৌন্দর্য তৈরি করে।

Explore this Place Add to Wishlist
লাল কাকড়ার চর

লাল কাকড়ার চর পটুয়াখালী

কুয়াকাটা থেকে ফাতরার চরের দিকে যেতে হাতের ডান পাশে পড়বে এই দ্বীপ, এখানে ভোর সকালে আসলে লাল কাঁকড়ার মিছিল দেখা যাবে, আবার গঙ্গামতি চরের পূর্ব পাশেও লাল কাঁকড়া অবাধে ঘুরে বেড়ায়। কাঁকড়ার চরে ভোরে বা সকালে গেলে লাল কাঁকড়ার দেখা পাওয়া টা কষ্টকর। সূর্যের তাপে বালু উত্তপ্ত হয়ে গেলে কাঁকড়া রা বাইরে বের হয়ে আসে। তাই, সকাল ১১ টার দিকে গেলেই সহজে লাল কাঁকড়ার দৌড়া দৌড়ি উপভোগ করতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন, আপনার উপস্থিতি যেন কোন ভাবেই টের না পায় পেলেই গরতে চলে যায় । এই লাল কাকঁড়ার চড় আপনাকে বাইকে করে যেতে হবে, সকাল ৭ টার পর থেকে বেলা ১২ পর্যন্ত হাজার হাজার লাল কাকঁড়া দেখতে পাবেন এখানে।

Explore this Place Add to Wishlist
কুয়াকাটা

কুয়াকাটা পটুয়াখালী

সাগরকন্যা হিসেবে পরিচিত কুয়াকাটা। পটুয়াখালীতে অবস্থিত কুয়াকাটা সী-বিচ... সমুদ্র সৈকত তো আছেই, সাথে আছে নয়নাভিরাম প্রকৃতি। তবে কুয়াকাটার আসল সৌন্দর্য লুকিয়ে আছে এর চরগুলোতে। অন্যতম চরগুলো হলো – গঙ্গামতির চর, কাঁকড়ার চর, ফাতরার চর,লেবুর চর। কুয়াকাটা সী-বিচ হলো একদম মাঝের পয়েন্টে,এখান থেকেই যেতে হয় চরগুলোতে।

Explore this Place Add to Wishlist
ঢাল চর

ঢাল চর ভোলা

প্রকৃতির রুক্ষতা যেখানে নির্মল সৌন্দর্য এর আরেক কারন, তেমনই এক চরের নাম "ঢাল চর"। এই চরের একটি প্রান্তকে তারুয়া সমুদ্র সৈকত ও বলা হয়, এই চরের বিচিত্র প্রাণী, গাছপালা আর মাটির ভিন্নতা দেখলে মুগ্ধ হওয়া ছাড়া উপায় নাই। গত কিছু বছরের প্রাকৃতিক দুর্জোগ এই চরকে আর ও নির্জন করেছে। এই দ্বীপে আছে হরিণ,বন মোরগ,শিয়াল,লাল কাকড়া আর অনেক অনেক পাখি। ক্যাম্প করে থাকার জন্য অনেক সুন্দর একটা যায়গা। লবণাক্ত বনাঞ্চল, কাছাকাছি স্থানের মাটির চারিত্রিক পার্থক্য, মরা গাছের শুকনো গুড়ি গুলো যেন ফসিলের মতো মনে হয় আর ভেজা গুড়ি গুলোকে মনে হয় প্রবাল পাথর। যারা ছবি তুলতে পছন্দ করেন তাদের জন্যে তো এক অনন্য স্থান। যারা ক্যাম্পিং ভালবাসেন তাদের জন্যেও হতে পারে একটি অসাধারন আর নিরাপদ স্থান। তবে ক্যাম্পিং করলে অবশ্যই স্থানীয় মানুষ কে জানিয়ে করবেন, তাদের কাছ থেকে সাহায্য ও নিতে পারেন, এরা খুব সরল ভাবে আপনার প্রয়জনে এগিয়ে আসবে।

Explore this Place Add to Wishlist
তালুকদার বাড়ী

তালুকদার বাড়ী ভোলা

ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার দেউলা ইউনিয়নে অবস্থিত ঐতিহাসিক জমিদার জিন্নাত তালুকদার এর বাড়ী। প্রায় ১৮০বছর পূর্বে এই বাড়ী নির্মাণ হয়েছিল বলে এলাকাবাসি ও এর বংশগত লোকজন জানায়। বিশাল আয়তনের বাড়ীটির সামনেই আছে, সৌন্দর্যমন্ডিত হল রুম, এর নিছে আছে কারাগার, পাশে মসজিদ, বাড়ীটির পূর্ব ও উত্তর কোনে বিশাল এক দিঘী। বাড়ীর ভিতরে বেশ কয়েকটি বাড়ী আছে। বর্তমানে জমিদার এর বংশের লোকজন এখানে বসবাস করেন। তবে সটিক পরিচর্যা না থাকার কারনে বাড়ীটি প্রায় বিলিন হবার উপক্রম হয়েছে। দুর দুরান্ত হতে প্রায় ভিবিন্ন লোকজন এখানে বেড়াতে আসেন। ভোলা ছাড়াও অন্যান্য এলাকার লোকজনও এখানে বেড়াতে আসে।

Explore this Place Add to Wishlist
শিপ চর

শিপ চর ভোলা

তীর থেকে বহু দূরে, বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে ওঠা ভয়াল নির্জন এক দ্বীপ হল শিপ চর। অনেক অনেক বছর আগে এখানে নাকি একটা জাহাজ ডুবে গিয়েছিল। পরবর্তীতে এখানে একটা দ্বীপ জেগে ওঠে। শিপ চর যেন আরেক সেন্ট মার্টিন। জোয়ারে দ্বীপের বড় একটা অংশ ডুবে যায়। ৭০ এর দশকে গভীর বঙ্গোপসাগর এ জেগে উঠা ছোট্ট এই দ্বীপ এর নাম শিপচর। এখানে একটি জাহাজ আটকে গিয়েছিল যা আর উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি, তাই এর বিভিন্ন অংশ কেটে কেটে নেয়া হয়েছে। তবে জাহাজের মাস্তুলটি এখনও আছে। দ্বীপটির বর্তমান আয়তন মাত্র ৩ একরের মত। মত্র ৩/৪ মিনিটেই সমগ্র দ্বীপটি চক্কর দিয়ে ফেলতে পারবেন। । সম্ভবত এটই গাছপালা সমৃদ্ধ বাংলাদেশের সবচাইতে ছোট দ্বীপ। দ্বীপটি নিকটস্ত ভুখন্ড থেকে প্রায় ১০ কিমি দূরে। সমুদ্রের বুকে বিলিন হয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় আজো টিকে আছে। ক্রমাগত ভাংগনে হয়তবা খুব বেশীদিন এই দ্বীপটি টিকে থাকবেনা। দ্বীপের একটা অংশ অনেকটা সুন্দরবনের কটকার মত। অপর অংশে বুমেরাং আকৃতির বীচ আছে।

Explore this Place Add to Wishlist