স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বসতভিটা মুন্সীগঞ্জ

people checked in

স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু একটি নাম একটি ইতিহাস একটি গর্ব । তিনি ছিলেন একজন বাঙালি পদার্থবিদ, উদ্ভিদবিদ ও জীববিজ্ঞানী এবং প্রথম দিকের একজন কল্পবিজ্ঞান রচয়িতা। গাছের প্রাণ আছে প্রবক্তা বাংলার কৃতি সন্তান জে.সি.বসুর আদি বাড়ী এই মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রী নগরে। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বাড়ি যা মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলায় রাড়িখালে অবস্থিত এবং বাংলাদেশের অন্যতম একটি প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। তার পৈত্রিক নিবাস মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার রাড়িখাল ইউনিয়নে যেখানে এখন রাড়িখাল স্যার জে সি বোস ইন্সটিটিউশন ও কলেজ অবস্থিত। এক দিনেই ঘুরে যেতে পারেন এই ক্ষণজন্মা বিজ্ঞানীর বাড়ি থেকে। ঢাকা থেকে এর দুরুত্ব প্রায় ৩৫ কিলোমিটার। তাদের পুরাতন দালানটি এখনো আছে যা ইতিমধ্যে সরকারের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের আওতায় নিয়ে রক্ষণাবেক্ষণ চলছে । স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর বাড়িটি ৬ কক্ষবিশিষ্ট। বাড়িটির একটি কক্ষকে জাদুঘর হিসেবে রূপান্তর করা হয়েছে। এই বাড়িতে ৬টি দিঘী রয়েছে। দিঘির বাধানো ঘাটে বসলে আপনার মন হারিয়ে যাবে বাংলার অতীত রূপকথায় । তার পৈতৃক বাড়িটির ত্রিশ একর জায়গায় জগদীশ চন্দ্র বসু কলেজ ও কমপ্লেক্স নির্মিত হয়েছে। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু তার জীবিত অবস্থায় তিনি তার সম্পত্তি দান করে যান। সেখানে ১৯২১ সালে স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশন প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১১ সালে জগদীশ চন্দ্র বসু কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়েছে, যা চলে জগদীশ চন্দ্র বসু ইনস্টিটিউশনের উদ্যোগে। কমপ্লেক্সে নির্মিত হয়েছে জগদীশ চন্দ্র বসু স্মৃতি জাদুঘর, পশু-পাখির ম্যুরাল, কৃত্রিম পাহাড়-ঝরনা ও সিঁড়ি বাধানো পুকুর ঘাট। জাদুঘরে জগদীশ চন্দ্র বসুর পোট্রেট, গবেষণাপত্র, হাতে লেখা পান্ডুলিপি, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নোবেল প্রাপ্তিতে তাকে লেখা চিঠি ও রবীন্দ্রনাথের বসুকে লেখা চিঠি, তেল রং দিয়ে অাঁকা ১৭টি দুর্লভ ছবি, রয়্যাল সোসাইটিতে দেওয়া বক্তৃতার কপি এবং নানা দুর্লভ জিনিস রয়েছে। কমপ্লেক্সের আকর্ষণীয় দিক হলো, এর প্রাকৃতিক পরিবেশ। প্রবেশ করতেই শান্ত-শীতল পরিবেশে মনটা জুড়িয়ে আসে। ছোট পরিসরের এ কমপ্লেক্সে রয়েছে পিকনিকের ব্যবস্থা। নাগরিক কায়ক্লেশ থেকে মুক্তি খুঁজে পেতে ঢাকা থেকে ৩৫ কিমি দূরের এ স্থানটি হতে পারে বেড়ানোর জন্য ভালো একটি জায়গা।

  • How to go কিভাবে যাবেন ঢাকা গোলাপ শাহর মাজারের কাছা কাছি ঢাকা-দোহার বাসে উঠবেন আর নামবেন রাড়িখাল তিনদোকান। ভাড়া পরবে ৬০ টাকা। অথবা পোস্তাগোলা ব্রীজ থেকে মাওয়াগামী যে কোন বাসে উঠে শ্রী নগর বাজার। এখান থেকে অটোতে রাড়ীখাল জেসি বসু কমপ্লেক্স।
  • Lodging কোথায় থাকবেন ঢাকা থেকে দিনে দিনে মুন্সিগঞ্জ ভ্রমণ শেষ করে ফিরে আসা সম্ভব। তাছাড়া জেলাশহরে থাকার সাধারণ মানের কিছু হোটেল আছে। শহরের দু-একটি হোটেল হলো হোটেল থ্রি স্টার (০১৭১৫৬৬৫৮২৯, ০১৭১৫১৭৭৭১৬) এবং হোটেল কমফোর্ট। এসব হোটেল ১৫০-৬০০ টাকায় থাকার ব্যবস্থা আছে। ভ্রমণে গেলে মুন্সিগঞ্জের জায়গাগুলো দেখে সবশেষে পদ্মা রিজর্টে (০১৭১৩০৩৩০৪৯) এসে থাকলে ভালো লাগবে।
  • Foods কি খাবেন চিত্তর দই, আনন্দর মিষ্টি, খুদের বৌউয়া বা খুদের খিচুড়ি, ভাগ্যকুলের মিষ্টি
  • Must see অব্যশ্যই দেখবেন N/A

Reviews

(Rate here)

Articles

Find on the Map