লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান মৌলভীবাজার

2 people checked in

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলায়,শ্রীমঙ্গল থেকে প্রায় দশ কিলোমিটার দূরে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ (কমলগঞ্জ) সড়কের পশ্চিম পাশে জাতীয় এ উদ্যানের প্রবেশপথ।লাউয়াছড়া উদ্যানের ইতিহাস বেশ পুরানো। ধারনা করা হয় ব্রিটিশ সরকার ১৯২৫ সালের দিকে সর্বপ্রথম এ অঞ্চলে বৃক্ষায়ন শুরু করে এবং এসব গাছপালা বেড়েই লাউয়াছড়া বনের সৃষ্টি হয়। প্রায় ২,৭৪০ হেক্টর এলাকা নিয়ে বিস্তৃত বনের অস্তিত্ব ও জীববৈচিত্র্য রক্ষার জন্যে এই বনের প্রায় ১,২৫০ হেক্টর এলাকাকে ১৯৭৪ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ, সংশোধন) আইন অনুযায়ী ১৯৯৬ সালে জাতীয় উদ্যানের মর্যাদা দেওয়া হয়।এই বনে রয়েছে ৪৬০ প্রজাতির দুর্লভ বন্যপ্রাণী ও গাছপালা, এর মাঝে রয়েছে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ, চার প্রজাতির উভচর, ছয় প্রজাতির সরিসৃপ, ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী ও ২৪৬ প্রজাতির পাখি। এই উদ্যানের অন্যতম আকর্ষণ বিলুপ্তপ্রায় উল্লুক। উল্লুকের একটি পরিবার বসবাস করে। এছাড়া এ বনে আরও দেখা যায় চশমা বানর, মুখপোড়া হনুমান, লজ্জাবতী বানর, মেছো বাঘ, শিয়াল, মায়া হরিণ ইত্যাদি । জানা যায় এই উদ্যানে আছে অজগরসহ নানারকম সাপ,পাখিদের মধ্যে আছে— সবুজ ঘুঘু, বনমোরগ, হরিয়াল, তুর্কিবাজ, কালো মাথা টিয়া, লেজকাটা টিয়া, কালো ফর্কটেইল, ধুসর সাতশৈলী, কালো বাজ, হিরামন, কালো মাথা বুলবুল, ধুমকল, পেঁচা, ফিঙ্গে, সবুজ সুইচোরা, সবুজ কোকিল, পাঙ্গা, কেশরাজ ইত্যাদি।উঁচু নিচু পাহাড়ি টিলার মাঝে মাঝে এ বনে চলার পথ। এখানকার মাটিতে বালুর পরিমাণ বেশি। বনের ভেতর দিয়েই বয়ে গেছে বেশ কয়েকটি পাহাড়ি ছড়া। বর্ষাকালে এসব ছড়াগুলোর বেশিরভাগই পানিতে পূর্ণ থাকে। আর যে কটি ছড়ায় শুষ্ক মৌসুমে পানি থাকে সেসব এলাকায় বন্যপ্রাণীদের আনাগোনা থাকে।উদ্যানে বেড়ানোর তিনটি পথ আছে। একটি তিন ঘণ্টার, একটি এক ঘণ্টার এবং অপরটি আধ ঘণ্টার পথ। উদ্যানের ভেতরে একটি খাসিয়া পল্লীও আছে।

  • How to go কিভাবে যাবেন ঢাকা থেকে সরাসরি বাসে বা ট্রেনে শ্রীমঙ্গল নামতে হবে। শ্রীমঙ্গল থেকে ভানুগাছ গামী সি এন জি তে চড়ে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের গেটে নামা যাবে।
  • Lodging কোথায় থাকবেন শ্রীমঙ্গল শহরে অনেক আবাসিক হোটেল রয়েছে। পর্যটন শহর হওয়ায় বেশ কিছু ভালো মানের রিসোর্ট ও রয়েছে।
  • Foods কি খাবেন N/A
  • Must see অব্যশ্যই দেখবেন বি আর টি এ চা গবেষনা কেন্দ্র, নীলকন্ঠ কেবিন, মনিপুরি জোড় মন্দির, হামহাম ঝর্না, বাইক্কা বিল, মাধবকুন্ড ঝর্না।

Reviews

(Rate here)

Articles

Find on the Map