মাধবকুন্ড জলপ্রাত মৌলভীবাজার

4 people checked in

প্রায় ২০০ ফুট উচ্চতাবিশিষ্ট দেশের সর্ববৃহৎ জলপ্রাত মাধবকুন্ডের অবস্থান মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা থানায়। বর্তমানে সেখানে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের রেস্টহাউজ ও রেস্টুরেন্ট নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে বেড়েছে পর্যটন সম্ভাবনা। এছাড়া সরকারি উদ্যোগে পুরো এলাকাটিকে ঘিরে তৈরি করা হচ্ছে ‘মাধবকুন্ড ইকোপার্ক’। মাধবকুন্ড-জলপ্রপাতের পাশেই রয়েছে কমলা বাগান। রয়েছে লেবু, সুপারি ও পানের বাগান। ফলে মাধবকুন্ড বেড়াতে গেলে সহজেই ঘুরে আসা যায় এসব বাগানে। এছাড়া মাধবকুন্ড এলাকায় বাস করে আদিবাসী খাসিয়ারা। খাসিয়ারা গাছে গাছে পান চাষ করে। মাধবছড়াকে ঘিরেই খাসিয়াদের জীবনযাত্রা আবর্তিত হয়। ফলে আদিবাষী জীবনযাত্রা আর সংস্কৃতিও উপভোগ করা যাবে এখানে। মাধবকুন্ড জলপ্রপাতে এল চোখে পড়বে উঁচু নিচু পাহাড়ি টিলায় দিগন্তজোড়া চা বাগান। টিলার ভাঁজে ভাঁজে খাসিয়াদের পানপুঞ্জি ও জুম চাষ। মাধবকুন্ড যাওয়ার উত্তম সময় হচ্ছে বর্ষাকাল। এ সময় ঝর্ণা পানিতে পূর্ণ থাকে। হাজার হাজার মানুষ আছেন প্রতি বছরের চৈত্র মাসে। চৈত্র মাসে ওই সময় বড় ধরনের মেলা বসে। প্রবেশদ্বারে ১০ টাকায় টিকেট কেটে ভিতরে যেতে হয়। ভেতরে ওয়াচ টাওয়ারে উঠতে আরো ১০ টাকার টিকিট নিতে হবে। এছাড়াও ভেতরে আরো অনেক কিছু রয়েছে। এগুলোতেও প্রবেশে ফি দিতে হয়। যদিও এক সময় ঝর্ণায় সাঁতার কাটা যেত, ঝর্ণার উপররে উঠায় বাঁধা ছিল না, এখন এসব ক্ষেত্রে জরিমানা করা হয়। নিরাপত্তার জন্য চালু করা হয়েছে পর্যটন পুলিশ।

  • How to go কিভাবে যাবেন মাদবকুন্ড সিলেট সদর থেকে ৭২ কিলোমিটার, মৌলভীবাজার জেলা থেকে ৭০ কিলোমিটার, কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন থেকে ৩২ কিলোমিটার এবং কাঁঠালতলী থেকে ৮ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত। বড়লেখা থেকে রিক্সা ভাড়া ৭০-৮০ টাকা, স্কুটার ভাড়া জনপ্রতি ৬০-৭০ টাকা। সিলেট কিংবা মৌলভীবাজার থাকতে চাইলে সেখানে ভালো মানের অনেক হোটেল আছে। আর যদি আপনি ঝর্নার আশে পাশে থাকতে চান তবে জেলা পরিষদের দুই কক্ষের একটি বিশ্রামাগার আছে। এখানে আপনি রাত্রি যাপন করতে পারেন। তবে সে ক্ষেত্রে আপনাকে কমপক্ষে ৭দিন আগে থেকে বুকিং দিতে হবে।
  • Lodging কোথায় থাকবেন এখানে জেলা পরিষদের ২টি বাংলো ও ২টি আবাসিক হোটেল রয়েছে। সিলেট শহরে থাকার মত কয়েকটি পরিচিত হোটেল হল- হোটেল হিল টাউন, গুলশান, দরগা গেইট, সুরমা, কায়েকোবাদ ইত্যাদি।
  • Foods কি খাবেন মাধবকুন্ডে খাওয়ার জন্য মোটামুটি মানের রেস্টুরেন্ট আছে। তবে দাম একটু বেশি দরের। এছাড়া জিন্দাবাজারে বেশ ভালো তিনটি খাওয়ার হোটেল রয়েছে। এগুলি হচ্ছে- পাঁচ ভাই, পানসী ও পালকি।
  • Must see অব্যশ্যই দেখবেন N/A

Reviews

(Rate here)

Articles

Find on the Map